পশ্চিমবঙ্গ লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প নিয়ম 2022| লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প লিস্ট

Contents hide
1 লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প অনলাইন আবেদন 2022| লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প ফর্ম নতুন |লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প চেক |লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প মেসেজ

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প অনলাইন আবেদন 2022| লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প ফর্ম নতুন |লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প চেক |লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প মেসেজ

এমন অনেক পরিবার রয়েছে যাদের প্রাথমিক আয়ের সহায়তা নেই তাই তারা তাদের দৈনন্দিন ব্যয়ের অর্থায়ন করতে পারছে না।  সেই সমস্ত মানুষের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্প চালু করেছে।  এই স্কিমের মাধ্যমে, সরকার পরিবারের মহিলা প্রধানদের প্রাথমিক আয়ের সহায়তা প্রদান করতে যাচ্ছে।  এই নিবন্ধটি পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার স্কিম সম্পর্কিত সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করবে যেমন এর উদ্দেশ্য, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প আবেদন পত্র, যোগ্যতার মানদণ্ড, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ইত্যাদি।  সুতরাং আপনি যদি এই স্কিম সম্পর্কিত সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে আগ্রহী হন তবে আপনাকে এই নিবন্ধটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

 

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্প 2022 

পশ্চিমবঙ্গ সরকার পশ্চিমবঙ্গের লক্ষ্মী ভান্ডার যোজনা চালু করেছে যাতে পরিবারের প্রধানদের মৌলিক আয়ের সহায়তা প্রদান করা যায়।  এই স্কিমের মাধ্যমে, সরকার সাধারণ শ্রেণীর পরিবারকে প্রতি মাসে 500 টাকা এবং এসসি/এসটি পরিবারকে প্রতি মাসে 1000 টাকা প্রদান করতে যাচ্ছে।  পশ্চিমবঙ্গের প্রায় 1.6 কোটি পরিবার এই প্রকল্প থেকে উপকৃত হবে।  এই স্কিমটি রাজ্যের একটি পরিবারের মাসিক গড় খরচ 5249 টাকা মাথায় রেখে চালু করা হয়েছে।  ।  এই প্রকল্পের অধীনে সুবিধার পরিমাণ সরাসরি উপকারভোগীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা হবে।

প্রকল্পের নাম লক্ষ্মী ভান্ডার
কারা পাবে  গৃহস্থ মহিলা
মা সি ক টা কা ৫০০-১০০০ হা জা র
বছরে টাকা ৬-১২ হাজার
রাজ্য পশ্চি মবঙ্গ
আবেদন মাধ্যম “ দুয়াদুয়ারে সরকা র” কাম্প

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্পের বাজেট 

এই স্কিমের অধীনে, এসসি এবং এসটি সম্প্রদায়ের প্রতিটি পরিবারকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।  সাধারণ শ্রেণীর জন্য, সরকার যোগ্যতার মানদণ্ডের উপর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  সরকার এই স্কিমের জন্য 12900 কোটি টাকার বাজেট বরাদ্দ করেছে।  পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্পও তৃণমূল কংগ্রেসের নির্বাচনী ইশতেহারের একটি অংশ ছিল।  এই স্কিমের বাস্তবায়ন শুরু হবে 1জুলাই 2021 থেকে। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছে ইতিমধ্যেই কিছু যোগ্য সুবিধাভোগীর একটি ডাটাবেস রয়েছে যেমন 33  লাখ নারী সামাজিক নিরাপত্তা প্রকল্পের সুবিধাভোগী।  এই সুবিধাভোগীদের এই স্কিমের সরাসরি বেনিফিট ট্রান্সফারের অধীনে ক্রয় করা যেতে পারে।  বাকি পরিবারের জন্য সরকার আবেদন করবে।  এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে রাজ্যের গ্রামীণ ও শহুরে অর্থনীতি শক্তিশালী হবে।

সুবিধাভোগীরা সেপ্টেম্বর 2021 থেকে আর্থিক সহায়তা গ্রহণ শুরু করবেন

মহিলাদের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্প চালু করেছে।  এই স্কিমের অধীনে, তফসিলি জাতি এবং উপজাতির মহিলারা প্রতি মাসে 1000 টাকা পাবেন, এবং সাধারণ শ্রেণীর মহিলারা প্রতি মাসে 500 টাকা পাবেন।  সরকার 2021সালের 1 সেপ্টেম্বর থেকে এই আর্থিক সহায়তা প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বেসরকারি এবং সরকারি খাতে স্থায়ী চাকরি ছাড়া যে সব মহিলার বয়স 25থেকে  বছরের মধ্যে তারা এই প্রকল্প থেকে উপকৃত হবেন।  এমনকি নৈমিত্তিক কর্মীরাও এই স্কিমের আওতায় আবেদন করতে পারেন।

 নাগরিকরা এই স্কিমের অধীনে ডোয়ার সরকার শিবিরের মাধ্যমে আবেদন করতে পারেন যা রাজ্য জুড়ে অনুষ্ঠিত হবে।  এই ক্যাম্পের মাধ্যমে সরকার 16 আগস্ট 2021 থেকে 15 সেপ্টেম্বর 2021 পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করবে।

 যদি কোন উপকারভোগী 20 অক্টোবর 2021 তারিখে লক্ষ্মী ভান্ডার কার্ড পায় তাহলে সেও সেপ্টেম্বর 2021 থেকে তার সহায়তা পাবে। এই স্কিম সম্পর্কিত প্রশ্নগুলি ছাড়াও এই শিবিরগুলির মাধ্যমেও সমাধান করা হবে।

  • নাগরিকরা এই স্কিমের অধীনে ডোয়ার সরকার শিবিরের মাধ্যমে আবেদন করতে পারেন যা রাজ্য জুড়ে অনুষ্ঠিত হবে।  এই ক্যাম্পের মাধ্যমে সরকার 16 আগস্ট 2021 থেকে 15 সেপ্টেম্বর 2021 পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করবে।

 

  •  যদি কোন উপকারভোগী 20 অক্টোবর 2021 তারিখে লক্ষ্মী ভান্ডার কার্ড পায় তাহলে সেও সেপ্টেম্বর 2021 থেকে তার সহায়তা পাবে। এই স্কিম সম্পর্কিত প্রশ্নগুলি ছাড়াও এই শিবিরগুলির মাধ্যমেও সমাধান করা হবে।

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্পের উদ্দেশ্য

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার যোজনা 2021 -এর মূল উদ্দেশ্য হল পরিবারের মহিলা প্রধানদের মৌলিক আয়ের সহায়তা প্রদান করা।  এই স্কিমের মাধ্যমে, পরিবারের মহিলা প্রধানদের 500 টাকা (সাধারণ বিভাগ) এবং 1000 টাকা (এসসি এবং এসটি বিভাগ) প্রদান করা হবে।  এই আর্থিক সহায়তার মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গের নাগরিকরা তাদের দৈনন্দিন কাজকর্মের অর্থায়ন করতে পারবে।  এই প্রকল্প তাদের আত্মনির্ভরশীল করে তুলবে।  এই প্রকল্প রাজ্যের গ্রামীণ ও শহুরে অর্থনীতিকেও শক্তিশালী করবে।  এখন পশ্চিমবঙ্গের নাগরিকরা তাদের দৈনন্দিন প্রয়োজনে অন্যের উপর নির্ভর করবে না।

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার স্কিমের সুবিধা এবং বৈশিষ্ট্য

  • পশ্চিমবঙ্গ সরকার পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার যোজনা চালু করেছে
  •  এই স্কিমের মাধ্যমে পরিবারের মহিলা প্রধানকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে
  •  সাধারণ ক্যাটাগরির জন্য আর্থিক সহায়তা প্রতি মাসে 500 টাকা এবং এসসি এবং এসটি ক্যাটাগরির জন্য প্রতি মাসে 1000 টাকা হবে
  •  পশ্চিমবঙ্গের 1.6 কোটি পরিবার এই প্রকল্পের সুবিধা পাবে
  •  এই স্কিম 5249 টাকার একটি পরিবারের মাসিক গড় খরচ ব্যয়ের কথা মাথায় রেখে চালু করা হয়েছে
  •  এই স্কিমের সাহায্যে, সুবিধাভোগীর মাসিক ব্যয়ের প্রায় 10% থেকে 20% কভার করা হবে
  •  এই প্রকল্পের অধীনে সুবিধার পরিমাণ সরাসরি উপকারভোগীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে স্থানান্তরিত হবে
  •  এসসি এবং এসটি সম্প্রদায়ের সমস্ত পরিবার এই স্কিমের অধীনে আবেদন করতে পারে
  •  পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য 12900 কোটি টাকার বাজেট বরাদ্দ করেছে
  •  পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার স্কিম তৃণমূল কংগ্রেসের নির্বাচনী ইশতেহারেরও একটি অংশ ছিল
  •  এই স্কিমের বাস্তবায়ন 1 জুলাই 2021 থেকে শুরু হবে

কারা লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন করতে পারবে ?

  • আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের নাগরিক হতে হব
  • একজন গৃহস্থ মহিলা হতে হবে ।
  • ২৫-৬০ বছর বয়স মহিলা ।
  •  এসসি এবং এসটি বিভাগের সকল পরিবার এই স্কিমের আওতায় আবেদন করতে পারে
  •  সাধারণ শ্রেণীর জন্য, যেসব পরিবারে কমপক্ষে একজন করদাতা সদস্য আছেন তারা এই স্কিমের অধীনে আবেদন করতে পারবেন না
  •  যারা সাধারণ শ্রেণির নাগরিক যাদের 2 হেক্টরের বেশি জমি আছে তারা এই স্কিমের অধীনে আবেদন করতে পারবেন না

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প documents কি কি লাগবে

 রঙিন পাসপোর্ট সাইজ ছবি
 স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের জেরক্স
 আধার কার্ডের জে রক্স
 SC/ST/ সার্টিফিকেট জেরক্স (If Any)
 ব্যাংক পাসবইয়ের প্রথম পৃষ্ঠার জেরক

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষ্মী ভাণ্ডার প্রকল্প আবেদন করার পদ্ধতি | লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প নিয়ম

পশ্চিমবঙ্গ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প আবেদন এর জন্য আপনাকে দুয়ারে সরকার এর লক্ষী ভান্ডার ক্যাম্পে যেতে হবে যেতে হবে। লক্ষী ভান্ডার ক্যাম্পেইন আপনাকে একটিভ ইউনিক নাম্বারের ফর্ম দেওয়া হবে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে আবেদনের জন্য এবং সেই ইউনিক ফরমটি ফিলাপ করে উল্লেখিত ডকুমেন্টগুলি কপি সেই ক্যাম্পে জমা দিতে হবে।

দুয়ারে সরকারের লক্ষী ভান্ডার ক্যাম্প ছাড়া অন্য কোথা থেকে যদি লক্ষী ভান্ডার এর আবেদনপত্র সংগ্রহ করেন তাহলে আপনি লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন না অর্থাৎ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প থেকে বঞ্চিত হবেন।

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প ফর্ম নতুন pdf Download

কবে থেকে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পে র টাকা দেওয়া হবে ?

১ জুলাই আনুষ্ঠানিক ভাবে রাজ্য বাজে ট ২০২১-এ এই প্রকল্পের কথা ঘোষনা করা হয়েছে ।
এই প্রকল্পে র কা জ ১৬ই আগষ্ট-১৫ সেপ্টেম্বর মাস থেকে শুরু হয়ে যাবে । প্রতি টা এলাকায় দূয়াদূয়ারে সরকার
প্রকল্পে র মাধ্যমে আবেদন হবে ।
সকলের টাকা ব্যাঙ্কে আসা শুরু হবে ১ সেপ্টেম্বর থেকে ।

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প লিস্ট প্রকাশিত হবে ?

লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের কোনো রকম লিস্ট/ নামের তালিকা এখনো পর্যন্ত প্রকাশিত হয়নি । এবিষয়ে
এখনো কোনো আপডেট পাওয়া যায়নি ।
মুখ্য মন্ত্রীর কথা অনুযায়ী আবেদন করা সকল মহিলারাই এই প্রকল্পে র টাকা পাব ন। সুতরাং পরবর্তী তে
টাকা পাওয়ার জন্য কোনো রকম তালিকা প্রকাশ ত হবে না ।

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প মেসেজ 

হ্যাঁ , দুয়ারে সরকার কাম্পে আবেদনে র পরে কয়ে কদিনের মধ্যে আপনার দেওয়া মোবাইলে ম্যাসেজ
আসবে । আপনার জমা দেওয়া আবেদন এপ্লিকেশন ফর্ম সথিক ভাবে জমা দেওয়া হয়েছে সেটির মাধ্যমে
জানা যাবে ।

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প status

  • লক্ষ্মী ভান্ডার স্কিমের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যান
  • আপনার আগে হোম পেজ খুলবে
  • এখন আপনাকে আপনার registered mobile number লিখতে হবে এবং জেনারেট ওটিপি -তে ক্লিক করতে হবে
  • এর পর আপনাকে OTP বক্সে OTP লিখতে হবে
  • এখন আপনাকে login এ ক্লিক করতে হবে
  • এর পরে আপনাকে চেক check application status  ক্লিক করতে হবে
  • এখন আপনাকে আপনার রেফারেন্স নম্বর লিখতে হবে
  • এর পরে আপনাকে চেক স্ট্যাটাসে ক্লিক করতে হবে
  • আবেদনের স্থিতি আপনার কম্পিউটারের পর্দায় থাকবে

 

লক্ষ্মী ভান্ডার স্বাস্থ্য সাথি কার্ড ছাড়া সম্ভব (Lakshmi Bhandar is possible without swasthya Sathi card) | Can I apply for laxmir bhandar without swasthya Sathi card?

সম্প্রতি ঘো ষিত লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পে প্রয়োজন পড়বে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডেরর্ডে এমন খবর সামনে এসেছে। অনেকের মনে।  প্রশ্ন জেগেছে যাদের স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নেই তাঁরা তাঁ কি লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে(Can I apply in Lakshmi Bhandari scheme without swasthya Sathi card)?

লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার লাগবে কারণ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের ফরম উল্লেখিত যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার আবশ্যিক লাগবে। তাই যাদের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নাই তারা আগে স্বাস্থ্যসাথী স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এপ্লাই করতে হবে তার পর লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে এপ্লাই করবে। দুয়ারের সরকার ক্যাম্প উঠে গেলেও আপনি আপনার পরে পঞ্চায়েত অফিস এ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প এপ্লাই করতে পারেন ।

আপনার যদি স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার কাটা থাকে তাহলে কি করবেন?

আপনাদের যদি কারোর স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নম্বর কাটা থাকে বা আবছা থাকে তাহলে আপনারা স্বাস্থ্য সাথী অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে ইউ আর এন ভেরিফিকেশন বা আধার কার্ড ও রেশন কার্ড দিয়ে দেখে নিতে পারেন। ইউ আর এন ভেরিফিকেশনের মাধ্যমে, আপনি যদি নাম্বার কাটা কার্ড পেয়ে থাকেন তাহলে একটু বুঝে বুঝে নাম্বারগুলো দিয়ে সেটা ভেরিফাই করে নিতে পারেন ,অথবা আপনি আধার কার্ড বা রেশন কার্ড নাম্বার দিয়ে সার্চ করে আপনার স্বাস্থ্যসাথী নম্বরটা পেয়ে যেতে পারেন। অনেকের স্বাস্থ্যসাথী স্লিপ আসেনি কিন্তু পোর্টালে যদি দেখেন আপনাদের স্বাস্থ্যসাথী নম্বর হয়ে আছে তাহলে সেই নম্বর দিয়ে আপনি লক্ষী ভান্ডার এর এপ্লিকেশন করতে পারবেন। বিশেষ দ্রষ্টব্য:- স্বাস্থ্য সাথী কার্ড ছাড়া কোনমতেই লক্ষী ভান্ডার চালু করা সম্ভব না।

F.A.Q

প্রশ্ন- লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প documents কি কি লাগবে ?

উত্তর-Aadhar card ,Caste certificate, Shastra Sathi card, Bank account details, Passport size ,photograph Mobile number.

প্রশ্ন- স্বাস্থ্য সাথী কার্ড না থাকলে লক্ষী ভান্ডার এপ্লাই করা যাবে না (Without swasthya Sathi card can I apply Lakhi vandar)?

উত্তর- লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার লাগবে কারণ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের ফরম উল্লেখিত যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার আবশ্যিক লাগবে। তাই যাদের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নাই তারা আগে স্বাস্থ্যসাথী স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এপ্লাই করতে হবে তার পর লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে এপ্লাই করবে। দুয়ারের সরকার ক্যাম্প উঠে গেলেও আপনি আপনার পরে পঞ্চায়েত অফিস এ লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প এপ্লাই করতে পারেন ।

প্রশ্ন- লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প এসএমএস না আসার কারণ?

উত্তর-অনেকে ইতিমধ্যে যারা লক্ষী ভান্ডার এর জন্য অ্যাপ্লিকেশন করেছেন কিন্তু এখন অব্দি মেসেজ পাননি তার কারণ হিসেবে আমরা প্রধানত তিনটি কারণ উল্লেখ করতে পারি। এক নম্বরে যেটি হল অনেকে কাটা নম্বরের কার্ড পেয়েছেন, কিন্তু যেখানে আপনারা ফরম ফিলাপ করেছেন সেখানে আপনাদের নম্বরটি যাচাই না করে ভুল নম্বর বসিয়ে দেয়া হয়েছে। দু’নম্বর কারণ হলো সার্ভারের ত্রুটিগত সমস্যার জন্য অনেকের মোবাইলে মেসেজ আসেনি। তিন নম্বর সমস্যা হল কেউ কেউ মোবাইল নম্বর হয়তো ভুল দিয়েছেন অথবা কেউ নাম্বার দিয়েছেন অথচ সেই নাম্বারে কোন রিচার্জ প্যাক অ্যাক্টিভ নাই।

প্রশ্ন-মহিলাদের যদি জয়েন্ট একাউন্ট থাকে তাহলে কি লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন করতে পারবে?

উত্তর-হ্যাঁ আবেদন করতে পারবে।

বিস্তারিত পড়ুন

My name is Wasif Hossain. I have been teaching children since graduation as well as writing on various topics with friends. Currently, I am a government teacher. I have also passed many government job exams.

Comments are closed.